Breaking News

আগামী ৭ দিনে দেশে বড় ভূমিকম্পের পূর্বাভাস!

সিলেটে সাত দফায় ভূ’মিকম্প বড় দুর্যোগের পূর্বাভাস বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। দেশের ভেতরেই বিপ’জ্জ’নক দু’টি ভূ’কম্পন উৎসের কথা জানিয়ে তারা বলছেন, যে কোনো সময় শক্তি দেখালে ক্ষ’য়ক্ষ’তির পরিমাণ অনুমান করাও কঠিন। তাই বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে সচেতনার আহ্বান তাদের।

বিকাশ অ্যাপ ইন্সটল করলেই পাবেন  ১০০ টাকা বোনাস!  Bkash App Download Link

সিলেটের জৈ’ন্তাপুরে লালাখালের দক্ষিণে ৫ থেকে ৬ কিলোমিটার দূরে ডু’পিটিলা পাহাড়ের ১৫ কিলোমিটার নিচে ভূ’মিক’ম্পের উৎপত্তিস্থল। একবার, দু’বার নয় – অনুভূত হয় সাতবার। যদিও এর সর্বোচ্চ মাত্রা ছিল ৪ দশমিক এক মাত্রার মৃদূ ভূ’মিকম্প।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশের ভেতরেই যে দু’টি স্থানে বি’পজ্জ’নক ভূক’ম্পন শক্তি লু’কিয়ে আছে সিলেটের জৈ’ন্তাপুর ও এর আশপাশের এলাকা এর মধ্যে একটি। শনিবারের (২৯ মে) একাধিক ছোট ভূক’ম্পন বড় দুর্যোগের সতর্কবার্তা বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূ-তত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. সৈয়দ হুমায়ুন আখতার বলেন, এই যে বিপুল পরিমাণ শ’ক্তি ভূ-অভ্য’ন্তরে জমা হয়েছে, সেটা এক সময় না এক সময় বের হতেই হবে। সিলেটের ভূ’মিকম্প একটা আগাম সতর্কবার্তা। দেখা যাবে হয়ত আগামী ৭ দিন বা ১০ দিন মধ্যেই বড় ভূ’মিকম্প হতে পারে।  কারণ অতি শক্তি’শালী অঞ্চলে এ ভূ’মিকম্পটা হয়েছে।

যেহেতু সিলেট-চট্টগ্রাম ভূ’মিকম্পপ্রবণ এলাকা হিসেবে ঝুঁ’কিপূর্ণ, তাই দুর্ঘ’টনা প্র’তিরোধে নি’য়মিত মহড়া ও ভূ’মিক’ম্প সহনশীল স্থাপনা নির্মাণের তাগিদ বিশেষজ্ঞদের। বুয়েটের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক মেহেদী আহমেদ আনসারী বলেন, এখন সুপ্ত অবস্থায় যে ফাটলগুলো আছে, সেগুলো যে কোনো সময় নাড়াচাড়া দিয়ে উঠবে।

সিলেট ও ঢাকায় অনেক নির্মাণ কাজ হচ্ছে। এগুলো ভূ’মি’কম্প সহনশীল হিসেবে করা হচ্ছে কিনা যাচাই করাটা খুবই জরুরি। ধ্যাপক ড. সৈয়দ হুমায়ুন আখতার বলেন, ভূ’মিক’ম্পের সময় আতঙ্কিত না হয়ে দু’য়েক কদমের মধ্যে আশ্রয় নেওয়া গেলে আমাদের জীবন রক্ষা পাবে। এবং সেটার জন্য আমাদের মহড়া প্রয়োজন।

সাধারণ মানুষকে এ বিষয়ে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানালেন তারা।

error: Content is protected !!